সাম্প্রতিক সংবাদ

‘মুসলিমরা দেশপ্রেমিক’, বারাক ওবামা

Barack-Obama_3015055b-300x187

বিডি নীয়ালা নিউজ(৫ই ফেব্রুয়ারী১৬)- আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ  প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর প্রথমবারের মতো যুক্তরাষ্ট্রের একটি মসজিদ পরিদর্শন করেছেন বারাক ওবামা।সেখানে তিনি মুসলিম নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন এবং দেশটির রাজনীতিকদের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মুসলিমবিদ্বেষী বক্তব্যের নিন্দা করেছেন। খবর আলজাজিরা ও বিবিসির।

রিপাবলিকান দলীয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের নাম উল্লেখ না করে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘আমাদের দেশে ইসলামবিরোধী বাগাড়ম্বরের কোনো স্থান নেই। কিছু রাজনীতিক ইসলাম সম্পর্কে খোড়া রাজনৈতিক বাগাড়ম্বর চালাচ্ছেন।’

তিনি মুসলিম আমেরিকানদের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করে বলেন, ‘আপনারা শুধু মুসলিম নন বা শুধু আমেরিকান নন, আপনারা একই সঙ্গে মুসলিম ও আমেরিকান। আপনাদের অনেকেই আমেরিকার সবচেয়ে শ্রদ্ধাভাজন ও দেশপ্রেমিক।’

ওবামা বলেন, ‘প্রায়ই যুক্তরাষ্ট্রের মুসলমানরা লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত হচ্ছে। তাদের দোষারোপ করা হচ্ছে। একজনের বিশ্বাসকে আক্রমণ করা মানে হচ্ছে সবার বিশ্বাসকে আঘাত করা।’

সাম্প্রতিক সময়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজনীতিক মুসলিমবিদ্বেষী উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে প্রেসিডেন্ট ওবামা এই মসজিদ পরিদর্শন আলাদা গুরুত্ব বহন করছে। তিনি স্থানীয় সময় বুধবার মেরিল্যান্ড অঙ্গরাজ্যের ইসলামিক সোসাইটি অব বাল্টিমোর মসজিদে যান। মসজিদের পাশাপাশি এখানে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পড়ানোর একটি স্কুলও রয়েছে।

সেখানে এ সময় প্রায় ২০০ মার্কিন মুসলিম প্রতিনিধি ছিলেন। ওবামা তাদের উদ্দেশে বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট হিসেবে আমি বলছি- আপনারা এদেশের জন্য সম্পূর্ণ উপযুক্ত।’

মার্কিন ইতিহাস থেকে উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, একদম শুরু থেকেই মুসলিমরা এদেশ গড়ায় অংশ নিয়েছে। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি, কোনো সন্ত্রাসী হামলার পরই আমেরিকার মানুষ মুসলিমদের নাম শুনতে পায়। এই অবস্থার পরিবর্তন হওয়া দরকার।

ওবামা বলেন, মার্কিন টেলিভিশন অনুষ্ঠানে ইতিবাচক মুসলিম চরিত্র দেখানো উচিত। তিনি মনে করিয়ে দেন, একটা সময় ছিল যখন এদেশের টিভিতে কালো মানুষদেরও দেখা যেত না।

মার্কিন প্রেসিডেন্টরা সাধারণত কোনো উপাসনালয় পরিদর্শন করেন না। তবে, ওবামা বিভিন্ন দেশে সফরের সময় মসজিদ পরিদর্শন করেছেন। বাল্টিমোরের যে মসজিদে ওবামা ভাষণ দেন, সেটি আমেরিকার পূর্বাঞ্চলের সবচেয়ে বড় মসজিদ। হোয়াইট হাউস থেকে জানানো হয়েছে, তার আনুষ্ঠানিক ভাষণের আগে ওবামা মসজিদের ইমাম ইয়াসিন শেখ ও মার্কিন অসি চালনা দলের একমাত্র নারী মুসলিম সদস্য ইবতিহাজ মোহাম্মদের সঙ্গে আলাদা করে কথা বলেন।

বারাক ওবামার এই আগমন নিয়ে বিতর্কও রয়েছে। কোনো কোনো রক্ষণশীল ভাষ্যকার ওবামার মসজিদে যাওয়ার বিষয়টি নিয়ে কড়া সমালোচনা করেছেন। ওবামার ভাষণের সময় মসজিদের বাইরে কয়েকজনকে ইসলামবিরোধী স্লোগান দিতেও দেখা গেছে।

মসজিদে দেয়া ভাষণে ওবামা বলেন, মার্কিনিদের ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে ও সত্যের সঙ্গে সব সময় থাকতে হবে।

তিনি বলেন, ‘আমাদের কমিউনিটির সেবার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ, প্রতিবেশীদের জীবনমান উন্নয়ন ও একটি আমেরিকার পরিবার হিসেবে আমাদের শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ রাখার জন্য আপনাদের ধন্যবাদ।’

গতবছর ডিসেম্বরে ক্যালিফোর্নিয়ার সান বার্নারডিনোতে এক মুসলিম দম্পতির গুলিতে ১৪ জন নিহত হন। এ ঘটনার পর এক প্রতিক্রিয়ায় রিপাবলিকান পার্টির প্রেসিডেন্ট মনোনয়নপ্রত্যাশী ডোনাল্ড ট্রাম্প মুসলমানদের নিয়ে উস্কানিমূলক বক্তব্য দেন।

ট্রাম্প মুসলিমদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয়া উচিত বলেও মন্তব্য করেন। এরপর ডেমোক্র্যাট দলের প্রেসিডেন্ট ওবামা রাজনীতিকদের এ ধরনের বক্তব্য থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান।

Facebooktwitterredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

shared on wplocker.com