সাম্প্রতিক সংবাদ

হৃদয়গ্রাহীভাবে তুলে ধরুন শেখ হাসিনার দশ উদ্যোগ : তথ্যমন্ত্রী

ডেস্ক রিপোর্ট : তথ্যমন্ত্রী হাসনুল হক ইনু প্রধানমন্ত্রীর দশ উদ্যোগকে হৃদয়গ্রাহী করে জনগণের কাছে তুলে ধরার জন্য গণমাধ্যমের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকায় সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে নতুন অর্থবছরে বাংলাদেশ টেলিভিশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দশ উদ্যোগের প্রচার কার্যক্রম উদ্বোধনকালে তিনি এ আহ্বান জানান।
তথ্য সচিব মরতুজা আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য বিষয়ক সমন্বয়ক মোঃ আবুল কালাম আজাদ।
তথ্যমন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনার দশ উদ্যোগ হচ্ছে পরিবেশবান্ধব, বৈষম্যহীন, দারিদ্র্যমুক্ত ও খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার মূলমন্ত্র। আর তা বাস্তবায়ন করতে হলে জনগণকে জানতে হবে, উদ্যোগগুলো কি কি এবং কিভাবে তা তাদের জীবনে উন্নয়ন বয়ে আনবে। হৃদয়গ্রাহীভাবে উদ্যোগগুলো জনগণের সামনে তুলে ধরার জন্য বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ সকল গণমাধ্যমকে তাদের উদ্ভাবনী মেধা প্রয়োগ করতে হবে ।
‘পঁচাত্তরের পর দেশকে লাগামহীন মুক্তবাজার অর্থনীতির কাছে ইজারা দেয়া হয়েছিল’ উল্লেখ করে ইনু বলেন, ‘শেখ হাসিনা দেশের ভার নিয়ে চার মূলনীতিতে ফিরে গেছেন এবং বিদেশী দাতাগোষ্ঠীর পরামর্শের গন্ডি থেকে বেরিয়ে এসে জাতির নিজস্ব পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছেন। ফলে দেশ এখন নিজস্ব সমৃদ্ধির পথে দ্রুত ধাবমান।’
মন্ত্রী বলেন, বাজেট ও পঞ্চবার্ষিকীসহ নানামেয়াদী পরিকল্পনা থাকা সত্ত্বেও শেখ হাসিনার দশ উদ্যোগ দেশের সমাজ ও অর্থনীতিতে দিকবদলের সূচনাকারী; এবং এ দশ উদ্যোগের বাস্তবায়ন বাজেটসহ অন্যান্য পরিকল্পনাকে সফল করার পথে সহায়ক ভূমিকা রেখে চলছে।
উল্লেখ্য, শেখ হাসিনার দশটি বিশেষ উদ্যোগের মধ্যে রয়েছে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প, ডিজিটাল বাংলাদেশ, নারীর ক্ষমতায়ন কার্যক্রমসমূহ, সবার জন্য বিদ্যুৎ, কমিউনিটি ক্লিনিক ও শিশু বিকাশ, আশ্রয়ণ প্রকল্প, সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচি, শিক্ষা সহায়তা কার্যক্রম, বিনিয়োগ বিকাশ এবং পরিবেশ সুরক্ষা।
এসময় ইতিবাচক প্রতিবেদন প্রচারে গুরুত্ব দেবার জন্য দেশের গণমাধ্যমের প্রশংসা করে এসডিজি সমন্বয়ক মোঃ আবুল কালাম আজাদ বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে জাতিসংঘের ১৭টি টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যে বর্ণিত ১৬৯টি বিষয় অর্জনের জন্য দেশ দৃঢ়প্রতিজ্ঞ এবং শেখ হাসিনার দশ উদ্যোগ বাস্তবায়ন দেশকে টেকসই উন্নয়নের পথেই ধাবিত করছে। সরকার রূপকল্প ২০২১ এবং ২০৪১ এর পরও ২০৭১ সালে স্বাধীনতার শতবর্ষপূর্তি এবং ২১০০ সালের জন্য ব-দ্বীপ পরিকল্পনা করছে বলেও সভায় জানান তিনি।
তথ্য সচিব মরতুজা আহমদ অনুষ্ঠান পরিচালনাকালে তথ্য মন্ত্রণালয়কে জনগণ ও সরকারের মধ্যে সেতুবন্ধ হিসেবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রীর দশ উদ্যোগ প্রচারে আন্তরিকভাবে কাজ অব্যাহত রাখতে মন্ত্রণালয়ের ১৪টি সংস্থা ও অধিদপ্তরের প্রতি নির্দেশনা দেন।
তথ্য মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং মন্ত্রণালয়ের সংস্থাগুলোর প্রধানগণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

 

B/S/S/N

Facebooktwitterredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
shared on wplocker.com