সাম্প্রতিক সংবাদ

সৈয়দপুরে ট্রেনে গণহত্যা দিবস পালিত

জয়নাল আবেদীন হিরো, নীলফামারী জেলা প্রতিনিধিঃ ১৩ জুন (সোমবার) নানা কর্মসূচির মধ্যদিয়ে পালিত হয়েছে নীলফামারীর সৈয়দপুরে ট্রেনে গণহত্যা দিবস। দিনব্যাপী গৃহিত এ সব কর্মসূচির মধ্য ছিল কালো ব্যাজ ধারণ, গোলাহাট বধ্যভূমির স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ, পূূজা-অর্চনা, বৃক্ষ রোপন ও আলোচনা সভা।

বেলা ১১টায় “আমরা একাত্তর” সংগঠনের ব্যানারে শহরের গোলাহাট বধ্যভূমি স্মৃতিস্তম্ভ চত্বরে ১৩ জুন উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শামসুল হক সরকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন ‘আমরা একাত্তর’ এর কেন্দ্রীয় সংগঠক ও ডাকসু’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা মাহাবুব জামান, ডাকসু’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা হিলাল উদ্দিন, বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি রেজা রহমান রেজু, মহিলা পরিষদের সহ-সভাপতি কানিজ রহমান, সৈয়দপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মহসিনুল হক মহসিন, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি রফিকুল ইসলাম বাবু, শহীদ পরিবারের সন্তান সাংবাদিক এম আর আলম ঝন্টু, শহীদ পরিবারের সন্তান রতন কুমার আগরওয়ালা, নাট্য অভিনেতা মীর সরওয়ার আলী মুকুল, আওয়ামী লীগ নেতা মো. হিটলার চৌধুরী ভুলু প্রমূখ। সৈয়দপুর পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোস্তাফিজুর রহমান সরকার মুন্না পুুরো আলোচনা সভাটি সঞ্চালনা করেন।

এর আগে আমরা একাত্তর, শহীদ সন্তানদের সংগঠন প্রজন্ম ‘৭১ ও রক্তধারা ‘৭১ সহ বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে সৈয়দপুর শহরের গোলাহাট বধ্যভূমির স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়। এছাড়াও ১৩ জুন নিহত শহীদ পরিবারের পক্ষ থেকে পূজা-অর্চনা এবং প্রজন্ম ‘৭১ সৈয়দপুর জেলা শাখার পক্ষ থেকে বধ্যভূমি চত্বরে বৃক্ষরোপন করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ১৯৭১ সালের ১৩ জুন নীলফামারীর সৈয়দপুর শহরে বসবাসকারী সংখ্যালঘু হিন্দু ও মাড়োয়ারি পরিবারের সদস্যদের নিরাপদে ভারতে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে রেলওয়ে স্টেশনে জড়ো করা হয়। তারপর সেখানে তাদের একটি বিশেষ ট্রেনে তুলে শহরের উপকন্ঠে রেলওয়ে কারখানার শেষ প্রান্তে গোলাহাট এলাকায় নিয়ে গিয়ে ট্রেনটি থামানো হয়। পরবর্তীতে ট্রেনের মধ্যে তলোয়ার, বল্লম, রামদাসহ নানা রকম ধাঁরালো অস্ত্র দিয়ে সংখ্যালঘু হিন্দু ও মাড়োয়ারি পরিবারের ৪৪৮ জন নারী, পুরুষ ও শিশুকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়। আর পাকিস্তানি হানাদারবাহিনীর ওই নৃশংস হত্যাযজ্ঞে সহায়তা করে তাদের এদেশীয় আলবদর, রাজাকাররা ও অবাঙালি (বিহারী)।

Facebooktwitterredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
shared on wplocker.com