সাম্প্রতিক সংবাদ

আসুন আমরা মাদক ও বাল্য বিয়ে মুক্ত মডেল উপজেলা গড়ে তুলি

সিরাজগঞ্জ থেকে,মারুফ সরকারঃসিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেছেন সরকার মোহাম্মদ রায়হান। দিনাজপুর জেলার বাসিন্দা বগুড়া জেলা সদর কালেক্টরের এ কর্মরত ছিলেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে প্রথম কর্মস্থল সিরাজগঞ্জ সদর। গতকাল রোববার তার প্রথম কর্মদিবসে ব্যস্ত সময় পার করেছেন। এরি মধ্যে তিনি সিরাজগঞ্জের সিনিয়র সাংবাদিক হেলাল আহমেদের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাতকারে বলেছেন।

সিরাজগঞ্জে যোগদানের পরেই জানতে পেরেছেন। এই উপজেলায় মাদককে ব্যাপক বিস্তার এবং বাল্য বিয়ের প্রবনতার কথা। তার মতে সমাজ প্রগতির জন্য বড় বাধা হচ্ছে মাদক ও বাল বিয়ে। মাদক ও বাল বিয়ে সমাজের ধংস আনতে পারে । এই দুটি প্রতি রোধে তিনি সর্বাত্বক প্রচেষ্টা চালাবেন। মাদক ও বাল বিয়ে বন্দে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলাবাসীকে উত্তবন্ধ হয়ে প্রশাসনকে সর্বাত্বক সহযোগিতা করতে হবে। দলমদ নিবর্েিশষে এই সামাজিক ব্যাধিকে দুর করতে আমি সকলের সহযোগিতা চাই।আমার আখাংকা সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলাকে মডেল উপজেলায় পরিনত করা।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্দু সেতর পচ্মিপ্রান্তে উত্তর বঙ্গেব প্রবেষ দ্বার সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার শিক্ষা শিল্প ও সংকৃতিতে অনেক এগিয়ে। অনেক গুনি মানুয়ের জম্মে ধণ্য এই উপজেলাবাসী। এই উপজেলো বর্তমান সময়ের অন্যতম সমস্যা হলো মাদক ও বাল্য বিয়ে। প্রথমই মাদদ বিক্রিতাদের আইনের আওতায় এনে উপযক্তি শাস্তির ব্যবস্থা করলে এর বিস্তার অনেকটাই কমে আসবে। এজন্য স্থানীও প্রযায়ে জন প্রতিনিধি রাজনৈতিক নেতৃবিন্দ এবং শুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের এগিয়ে আসতে হবে। মাদক থেকে তরুন প্রজম্মকে মাদক থেকে রক্ষা করা এখন সময়ের দাবী। একই সঙ্গে মাদক সেবনকারীদের রক্ষা করতে মল কাজ অভিভাবকদের করতে হবে। সন্তানদের রক্ষায় অভিভাবকদের সচেতনার বিক্লপ নেই।

একই সঙ্গে বাল্য বিয়ে সমাজ ও রাষ্ট্রের অগ্রযাত্রাকে বাধা গ্রস্ত করছে। যেসকল অভিবাবক নিজের আদরের কন্যাকে বাল্য কালে বিয়ে দিচ্ছেন তারা নিজের পায়েই নিজে কুড়াল মারছেন। একটু আর্থিক কষ্টের কারনেই অনেকেই এ কাজটি করছেন। কিন্ত যৌতুক ও নিযাতনের কারনে আবার বাবার বাড়ীতেই ফিরে আসছেন। অথচ একটু কষ্ট করে মেয়েকে একটু শিক্ষিত করলেই ন্যুনতম এসএসসি পাশ করলেও মেয়েটি স্বাভালম্মি হয়ে স্বামীর ঘরে সখের সংসার করতে পারেন।সরকার নারীদের এগিয়ে নিতে অনেক কর্মসচি দিয়েছেন। এটি আমাদের জানতে হবে। নারীদের অধিকার সচেতন করতে হলে পুরুষদেরও ভমিকা রাখতে হবে। আসুন আমরা সম্মিলিত ভাবে মাদক ও বাল্য বিয়ে মুক্ত সমাজ ও রাষ্ট্র গড়ে তুলি।

Facebooktwitterredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
shared on wplocker.com