সাম্প্রতিক সংবাদ

সার কারখানায় ট্যাংক বিস্ফোরণ, মরে ভেসে উঠছে পুকুরের মাছ

sarkarkhana blast

বিডি নীয়ালা নিউজ(২৪ই  আগস্ট ২০১৬ইং)-ডেস্ক রিপোর্টঃ  চট্টগ্রামের আনোয়ারায় ডিএপি সার কারখানায় ট্যাংক থেকে নিঃসরিত অ্যামোনিয়া গ্যাসের প্রভাবে অর্ধশতাধিক মানুষ অসুস্থ হওয়ার পাশাপাশি কারখানা সংলগ্ন কয়েকটি ঘেরের মাছ ও দুটি গরু মারা গেছে। আশপাশের বেশ কিছু গাছে জ্বলেও গেছে।

এদিকে গ্যাস নিঃসরণকারী ট্যাংকটি ৫০ ফুট দূরে সরে গেলেও সেটি বিস্ফোরিত হয়েছিল নাকি ফুটো হয়ে এ ঘটনা ঘটেছে তা খোলসা করেনি কর্তৃপক্ষ। কারণ খতিয়ে দেখতে কমিটি করা হয়েছে। ৫০০ মেট্রিক টন অ্যামোনিয়া নিয়ে ট্যাংকটি বিস্ফোরিত হয় বলে ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তারা জিনিয়েছেন।

ডিএপি সার কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক অমল কান্তি বড়ুয়া এবং বাংলাদেশ কেমিকেল ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যান্ড করপোরেশনের (বিসিআইসির) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইকবাল দুজনের কেউই কীভাবে এ ঘটনা ঘটল তা নিয়ে স্পষ্ট কিছু বলেননি।

ঘটনার একদিন পর মঙ্গলবার রাতে আশপাশে গ্যাসের ঝাঁঝ কমে এলেও ঘটনাস্থলে ঝাঁঝালো গন্ধ রয়েছে বলে ওই কারখানার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। সোমবার রাতে গ্যাস নিঃসরণ শুরু হওয়ার পর ওই এলাকার পাশাপাশি নগরীর বিভিন্ন অংশে ছড়িয়ে পড়লে এর প্রভাবে অনেকে অসুস্থ হয়ে পড়েন।

অসুস্থ ৫২ জনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তাদের মধ্যে ৩৮ জন এখনও সেখানে চিকিৎসা নিচ্ছেন বলে মেডিকেল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই পংকজ বড়ুয়া জানিয়েছেন।

এর বাইরে অনেক মনুষ স্থানীয় আনোয়ারা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং কাফকো হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।

তবে এই গ্যাসের প্রভাবে দীর্ঘমেয়াদে ক্ষতি হবে না বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের বন ও পরিবেশবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক দানেশ মিয়া বলেন, “এ গ্যাসের প্রভাবে ক্ষতি তাৎক্ষণিক, দীর্ঘমেয়াদে এর প্রভাব পড়বে না বলে আশা করা যায়।

“যে এলাকায় মাছ বা পশু মারা গেছে তা গ্যাসের তাৎক্ষণিক প্রভাবে হয়েছে বলে ধারণা করছি। নাইট্রোজের সাথে অক্সিজেন মিশে অক্সাইড তৈরি হয়ে এটি বিষাক্ত হয়ে জীবজন্তুর ফুসফুসের ক্ষতি করে।

“এছাড়া পানির সাথে মিশলে এটি অতিরিক্ত ক্ষারীয় হয়ে পড়ে এবং পার্শ্ববর্তী নদী বা জলাশয়ের জলজপ্রাণীর ক্ষতি হতে পারে। তবে দীর্ঘমেয়াদে এর প্রভাব না থাকার সম্ভাবনা বেশি।”

দুর্ঘটনার কারণ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের সরাসরি জবাব এড়িয়ে গেছেন বিসিআইসি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইকবাল। “ঘটনা কী কারণে ঘটেছে তা নির্ণয়ে একটি কারিগরি কমিটি করে দেওয়া হয়েছে। কমিটি তিনদিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিলে আমরা বুঝতে পারব।”

দুপুরে সাংবাদিকদের অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “সহসাই কারণ উদঘাটন করা হবে। এতে কারও গাফিলতি ছিল কি না তাও খতিয়ে দেখে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

এসময় উপস্থিত চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন বলেন, “এটি একটি দুর্ঘটনা। এর সাথে কেউ দায়ী কি না বা কেন ঘটেছে তা তদন্ত শুরু হয়েছে। “এটি কোনো ‘স্যাবোটাজ’ কি না তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।”

কারখানা সংলগ্ন একটি মাছের ঘেরের তত্ত্বাবধায়ক রমজান আলী মঙ্গলবার বলেন, “আমি মাছ পাহারা দিচ্ছিলাম। রাত ১০টার দিকে ওই কারখানার ভেতর থেকে বিকট তিনটি শব্দ শুনি এবং কালো ধোঁয়া দেখতে পাই। এসময় নাকে ঝাঁঝালো গন্ধও আসে।”

স্থানীয় লোকজন ও কারখানার কয়েকজন কর্মকর্তারা জানান, সোমবার রাতে বিস্ফোরণের পর ডিএপি-১ এর একটি ট্যাংক ৫০ ফুটের মতো দূরত্বে গিয়ে কাত হয়ে পড়ে। লোহার পাত ও বিশেষ ধরনের উপাদানে তৈরি অ্যামোনিয়া স্টোরেজ ট্যাংকটি ফেটে ভেতরে থাকা গ্যাস নিঃসরণ শুরু হয়। মঙ্গলবার ঘটনাস্থলে গিয়ে দুর্ঘটনাকবলিত ট্যাংকটি তার অবস্থান থেকে খানিকটা দূরে কাত হয়ে পড়ে থাকতে দেখা গেছে।

সূত্র: বিডি/নিউজ/বিডি/লাইভ

Facebooktwitterredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
shared on wplocker.com