সাম্প্রতিক সংবাদ

মুক্তিযুদ্ধের কাহিনীতে মোবাইল গেম ‘হিরোজ অব ৭১’

heros of 71

বিডি নীয়ালা নিউজ(২৩ই মার্চ১৬)-অনলাইন প্রতিবেদনঃ   মুক্তিযোদ্ধা শামসু বাহিনীর চরের মধ্যে একটি পাকিস্তানি ক্যাম্প দখল। শহীদ হন বাহিনীর সদস্য সজল। সহযোদ্ধার মৃত্যুতে প্রতিশোধের শপথ নেয় শামসু বাহিনী। এবার তাদের সামনে নতুন চ্যালেঞ্জ, আরেক চরে পাকিস্তানি টর্চার ক্যাম্পের বন্দি বীরাঙ্গনাদের উদ্ধার করা। মুক্তিযোদ্ধাদের আক্রমণ টর্চার ক্যাম্পে। মিশনের পর আরও মিশন…, একটিই পথ ‘ মরো, নয়তো মারো’।

মহান মুক্তিযুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধাদের গেরিলা আক্রমণের এমন নানা কাহিনী নিয়ে তৈরি মোবাইল গেম ‘হিরোজ অব ৭১’ডাউনলোড করা যাবে ২৬ মার্চ, স্বাধীনতা দিবসে। এটি পাওয়া যাবে গুগল প্লে-স্টোরে।

নতুন প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধ ও দেশীয় সংস্কৃতির প্রতি আরও আগ্রহী করে তোলার লক্ষ্যে পোর্টব্লিস তাদের নতুন অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল গেমটি নির্মাণ করেছে।

বুধবার (২৩ মার্চ) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে মোবাইল গেমটির উন্মোচনের ঘোষণা দেওয়া হয়।

সংবাদ সম্মেলনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, আইসিটি সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার, ভূমিসচিব মেজবাউদ্দিন, বিসিসি’র নির্বাহী পরিচালক এসএম আশরাফুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

গেমটির ঘটনা, কাহিনী ও চরিত্র কাল্পনিক হলেও নির্মাতা প্রতিষ্ঠান পোর্টব্লিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) শাফায়েত লতিফ বলেন এটি ভালো সাড়া ফেলেছে এবং তরুণ প্রজন্ম গেমের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধকে জানবে।

গেমের বিস্তারিত তুলে ধরে তিনি জানান, গুগল অ্যানালিস্ট ডাটা অনুযায়ী গেমটি গুগল প্লে-স্টোর থেকে তিন লাখ ৮০ হাজার বার ডাউনলোড হয়েছে, বর্তমানে গেমটি খেলছেন ছয় লাখ ৮৪ হাজার ১৯৬ জন। গেমটির সেশন সংখ্যা ৪৯ লাখ এবং ইউজার রেটিং ৪ দশমিক ৭।

গেমের নির্মাতারা আরও বড় পরিসরে নতুন সিক্যুয়াল নিয়ে এসেছেন, যার নাম ‘হিরোজ অব ৭১:রিট্যালিয়েশন’। গেমটিতে থ্রিডি গ্রাফিক্স এবং অ্যানিমেশনের মাধ্যমে ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের যুদ্ধকালীন পরিবেশ তুলে ধরা হয়েছে।

অ্যান্ড্রয়েডের পাশাপাশি শিগগিরই গেমটি অন্যান্য ভার্সনে পাওয়া যাবে বলে জানায় পোর্টব্লিস।

অনুষ্ঠানে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক বলেন, তরুণ প্রজন্ম বায়ান্নে প্রাণ দিয়ে বাংলা ভাষা ও একাত্তরে বুকের তাজা রক্ত দিয়ে স্বাধীন বাংলাদেশ দিয়েছে। আমাদের স্বাধীনতার মূল লক্ষ্য তুলে ধরতে না পারলে হবে না। এ গেমের মাধ্যমে তা সম্ভব।

‘তরুণ প্রজন্ম নিজেরা উদ্বুদ্ধ হয়ে এ গেম তৈরি করেছে, গেম খেলে মুক্তিযুদ্ধের প্রেরণায় অনুপ্রাণিত হয়ে উজ্জীবিত হবে তরুণরা। সারা বিশ্বে বাংলা ভাষাভাষি ৪০ কোটি, লাখ লাখ বার ডাউনলোড হবে।’
গেমটি ডাউনলোড করে সবাইকে খেলার অনুরোধ জানান পলক। তরুণরা গড়বে নতুন দেশ, ডিজিটাল হবে বাংলাদেশ, বলেন পলক।
মুক্তিযুদ্ধের ওপর নির্মিত এ গেইমটি স্বাধীনতা দিবসের আগে গর্বের বিষয় উল্লেখ করে এসএম আশরাফুল ইসলাম বলেন, শিশুদের আনন্দের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের বিষয়বস্তু শিক্ষা দিতে হবে। এক্ষেত্রে গেমটি ভূমিকা রাখবে।

সরকার এ ধরনের উদ্যোগে সহযোগিতা ও পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে যাবে বলে জানান এসএম আশরাফুল।

Facebooktwitterredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
shared on wplocker.com