সাম্প্রতিক সংবাদ

উপজেলা নির্বাচন নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ আওয়ামী লীগের প্রার্থী বাছাইয়ে হয়নি বর্ধিত সভা, প্রতিবাদে তৃণমূলের নেতাকর্মী সহযোগি সংগঠনের প্রতিবাদ সভা

মাফি মহিউদ্দিন, কিশোরগঞ্জ (নীলফামারী) থেকেঃ নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলায় বর্ধিত সভা না করে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তালিকা করায় প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে তৃণমূল আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীসহ সহযোগি সংগঠন। রবিবার বিকালে উপজেলা শহরের পুরাতন পানি উন্নয়ন বোর্ড চত্ত্বরে ওই সভা অণুষ্ঠিত হয়।

সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল ইসলাম সাজুর সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ মাফুজুর রহমার, সাংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ারুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আতাউর রহমান শাহ্ দুলু, বাহাগিলি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি এমদাদুল হক, বড়ভিটা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউনূছ আলী, গাড়াগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি বিপ্লব কুমার সরকার, চাঁদখানা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক চন্দন কুমার রায়, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ফনিভুষণ মজুমদার, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক শাহ্ মোহাম্মদ আবুল কালাম বারী পাইলট, রণচ-ী ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক মোকলেছার রহমান বিমান প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের প্রার্থী বাছাইয়ে কেন্দ্রীয় নিদের্শনা উপেক্ষা করেছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এছরারুল হক ও সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বাবুল। তারা বর্ধিত সভা না করে চেয়ারম্যান পদে নিজের পছন্দের লোককে দলীয় প্রার্থী করার পায়তারায় লিপ্ত রয়েছেন। তাদের এমন অপচেষ্টায় বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। ওই অপচেষ্টার প্রতিবাদে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীসহ অংগসংগঠনের নেতাকর্মীরা এমন প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে।

এ বিষয়ে উপজেলা আওয়মী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন বাবুল বলেন, আমরা মোট ১৩ জন মনোনয়ন প্রত্যাশির প্রস্তাবনা পেয়েছিলাম। প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ সকলকে আবেদন করতে বলায় ১১ জনের আবেদন পাওয়া যায়। সভাপতিসহ একমত হয়ে ওই ১১ জনের নামের তালিকা জেলা নেতৃবৃন্দের কাছে পাঠিয়েছি। অবশিষ্ট রফিকুল ইসলাম সাজু এবং শাহ্ মোহাম্মদ আবুল কালাম বারী পাইলট আমাদের কাছে আবেদন করেননি। এ কারণে তাদের নামের তালিকা পাঠানো সম্ভব হয়নি। এখন তারাই ওই প্রতিবাদ সভা ডেকেছেন।

বর্ধিত সভা না করার ব্যাপারে তিনি বলেন,‘তৃণমূল নেতাদের ভোটে একক প্রার্থী নির্বাচনের ভাবনা ছিল। কিন্তু অনেক মনোনয়ন প্রত্যাশি, সেখানে সভা ডাকলেই বিশৃঙ্খলা হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা দেখা দেয়। দলে বিভেদ এবং বিশৃঙ্খলা এড়াতে আবেদনকারীদের সঙ্গে আলোচনা করে ওই তালিকা পাঠানো হয়েছে। কেন্দ্র যাকেই মনোনয়ন দিবে তার পক্ষে সবাই এক হয়ে কাজ করবো।

Facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top
Social Media Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
shared on wplocker.com